শিহরণ থেকে বলছি

অলোক বিশ্বাস

উড়ে আসা ঘুড়ি যারই হাতে পড়ুক…
স্বাধীন পুকুরের মাছ যারই ছিপে ধরো…
হৃদয়জাত হে কন্যা হে বালক, ভাবো,
এরপর কোথা থেকে কী কী ঘটে যেতে পারে…
ট্রেনে ওঠার পরে হারিয়েছে টিকিট… হারিয়েছি কিচেনে সমস্ত মশলার কৌটো… আর ওই যে
স্বর্গীয় রুমাল যা দিয়ে পরিতুষ্ট ভালোবেসেছিলাম,
সেটাও হারানোর পর… রৌদ্রস্নাত হৃদিজন্মের
হে কন্যা হে বালক, বলো, এরপর কোথা থেকে
কী কী ঘটে যেতে পারে… অবচেতনার তলেতলে আরো যে অবচেতনা আছে… তারও ভিতরে
যে প্রাচীনের স্মৃতিময় পুরাণ ও ইতিহাস,
সেসকল যখন আর কোনোভাবেই সামলে উঠতে পারছি না… মনে হচ্ছে কেবলই একটি হেমন্তের ঝরা বৃক্ষ হয়ে উঠছি…
মনে হচ্ছে মাঠ ঘাট প্রান্তর জুড়ে ভয়ংকর উত্তপ্ত
ঝড় হামলে পড়ছে আমারই আঁকা বিশাল ক্যানভাসের ওপরে… হে কন্যা হে বালক, যাঁরা হৃদয় পরিচালনায় আছো, বলে ফেলো,
আরো কতোভাবে ভারসাম্যহীন হয়ে পড়তে পারে
আত্মিকতায় সাজানো প্রতিটি ধানের ক্ষেত…

Leave a Reply

Your email address will not be published.